# শেখার কোন শেষ নেই। 7ম থেকে 10ম শ্রেণীর জন্য নতুন শিক্ষাবর্ষের জন্য অনলাইন লাইভ ক্লাস শুরু হয়েছে। এখন নিবন্ধন করুন

Read more

নবম শ্রেণির গণিতের প্রথম অধ্যায়, ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধানগুলিতে কীভাবে ভালো স্কোর করবেন?

STUDY TIPS

নবম শ্রেণির গণিতের প্রথম অধ্যায়, ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধানগুলিতে কীভাবে ভালো স্কোর করবেন?

ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধানে নবম শ্রেণির প্রথম অধ্যায়ে রয়েছে নাম্বার সিস্টেম। এগুলি জিনিও ই-শেখার বিশেষজ্ঞ মণ্ডলীর দ্বারা তৈরি। গণিতের এই সমাধানগুলি শিক্ষার্থীদের বোর্ড পরীক্ষার জন্য বিশেষ ভাবে তৈরি করে এবং কার্যকরভাবে সমস্যাগুলি সমাধান করতে সাহায্য করে। এমন ভাবে গণিতের সমাধানগুলি করা হয়, যাতে শিক্ষার্থীরা জলের মতো বুঝতে পারে। প্রথম অধ্যায়ের অনুশীলনীতে দেওয়া যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর এখানে সাজিয়ে দেওয়া হয়েছে বিস্তারিতভাবে এবং ধাপে ধাপে ব্যাখ্যা সহযোগে। ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধানগুলির মাধ্যমে বহু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়, যাতে তারা পরবর্তী উঁচু ক্লাসে গণিতকে দ্বিধাহীন ভাবে বিষয় হিসাবে বাছাই করতে পারে। পরীক্ষার্থীরা তাদের আসন্ন ডাবলিউবিসিএইচএসই সহ ডাবলিউবিবিএসই পরীক্ষার জন্য দশম শ্রেণির প্রাথমিক বিষয়গুলিও শিখে নিতে পারবেন এই অধ্যায় থেকে। স্বাভাবিক ভাবে প্রশ্ন আসে, তা কীভাবে সম্ভব! আসলে, নবম শ্রেণির ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধানগুলি ডাবলিউবিসিএইচএসই-র সিলেবাস ২০২২-২৩-এর সর্বশেষ আপডেট এবং নির্দেশিকা অনুযায়ী তৈরি।

ডাবলিউবিবিএসই-র নবম শ্রেণির গণিত, জানুন নাম্বার সিস্টেম সম্পর্কে

নাম্বার সিস্টেম বিষয়টি আসলে কী? মোদ্দা কথায়, সংখ্যা গণনা। নির্দিষ্ট পদ্ধতি ও নিয়ম মেনে, চিহ্ন ব্যবহার করে নাম্বার সিস্টেমের বিষয়টিকে উপস্থাপন করা হয়। নাম্বার সিস্টেম হল একটি সংজ্ঞায়িত ব্যবধান দ্বারা পৃথক করা এক সারিতে থাকা সংখ্যাগুলির চিত্র। জটিল বিজ্ঞানভিত্তিক গণনা থেকে শুরু করে একটি বাক্সে চকলেটের সংখ্যা কত, এমন বিভিন্ন গাণিতিক বিষয়ে এই নাম্বার সিস্টেম ব্যবহার করা হয়। পশ্চিমবঙ্গের পড়ুয়াদের শিক্ষাক্রমেও রয়েছে ডাবলিউবিসিএইচএসই-র একই পাঠ্যপুস্তক। নবম শ্রেণির ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধান যাবতীয় পর্যায় বা ধাপ এবং সূত্রের ব্যাখ্যা সহ প্রস্তুত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ডাবলিউবিবিএসই-র গণিতের সমাধান পিডিএফ ফরম্যাটে, অনলাইন স্টাডি মোডে, এমনকী ভিডিও ফরম্যাটেও পাওয়া যাবে।        

আসুন, নবম শ্রেণির গণিতের প্রথম অধ্যায়ে নাম্বার সিস্টেম সম্পর্কে আরও কিছু জানি:

ন্যাচারাল নাম্বার

ন্যাচারাল নাম্বার (N) হল পজিটিভ সংখ্যা যেমন ১, ২, ৩ ইত্যাদি। ন্যাচারাল নাম্বার হল পজিটিভ ইন্টিজারস।

হোল নাম্বার

হোল নাম্বার (W) বা পূর্ণ সংখ্যা হল ০, ১, ২ ইত্যাদি। হোল নাম্বার হল ‘০’ সহ সমস্ত ন্যাচারাল নাম্বার। হোল নাম্বার কোনো ফ্র্যাকশন বা ভগ্নাংশ, নেগেটিভ নাম্বার বা ঋণাত্মক সংখ্যা বা ডেসিমালস বা দশমিক সংখ্যার অন্তর্ভুক্ত নয়।

ইন্টিজার

ইন্টিজার এমন একটি সংখ্যা যা নেগেটিভ নাম্বার বা ঋণাত্মক সংখ্যা সহ হোল নাম্বার বা পূর্ণ সংখ্যাকে অন্তর্ভুক্ত করে। ইন্টিজার হল শূন্য সহ নেগেটিভ এবং পজিটিভ নাম্বারের সেট থেকে এমন একটি সংখ্যা, যার কোনো ফ্র্যাকশননাল ভ্যালু বা ভগ্নাংশ মান নেই। -৩, ২, ০, ১৫, ৯০০ প্রভৃতি হল ইন্টিজারের উদাহরণ। এখানে Z পূর্ণসংখ্যার একটি সেটকে বোঝায়।

রাশনাল নাম্বার

নাম্বার হিসাবে ‘r’ কে একটি রাশনাল নাম্বার বলা হয়, যদি এটিকে লেখা যায় p/q আকারে, যেখানে p এবং q পূর্ণসংখ্যা এবং q ≠ 0 রাশনাল নাম্বারের কিছু উদাহরণ, ৩/৫, ৭/২, ১১/১৩ ইত্যাদি।

ইরাশনাল নাম্বার

যেকোনো সংখ্যাকে p/q আকারে প্রকাশ করা যায় না, যেখানে p এবং q হল ইন্টিজারস এবং q ≠ 0, একটি ইরাশনাল নাম্বার, উদাহরণ: √2, 1.010024563…, e, π

ইরাশনাল সংখ্যার বৈশিষ্ট্য

নীচে ইরাশনাল সংখ্যার চারটি বৈশিষ্ট্যের উল্লেখ করা হল:

i. একটি ইরাশনাল সংখ্যার নেগেটিভ হল একটি ইরাশনাল সংখ্যা।

ii. একটি রাশনাল এবং একটি ইরাশনাল সংখ্যার যোগফল এবং পার্থক্য সবসময় একটি ইরাশনাল সংখ্যা হবে।

iii. দুটি ইরাশনাল সংখ্যার যোগফল, গুণফল এবং পার্থক্য একটি রাশনাল বা একটি ইরাশনাল সংখ্যা হবে।

iv. একটি ইরাশনাল সংখ্যার সঙ্গে একটি ইরাশনাল সংখ্যার গুণফল রাশনাল বা ইরাশনাল হয়।

রিয়েল নাম্বার

একটি সংখ্যার সারি প্রতিনিধিত্ব করতে পারে এমন যেকোনো সংখ্যা হল রিয়েল নাম্বার। (R). এতে রাশনাল এবং ইরাশনাল উভয় সংখ্যাই অন্তর্ভুক্ত। সংখ্যার সারির প্রতিটি পয়েন্ট একটি ইউনিক রিয়েল নাম্বারকে বোঝায়। রিয়েল নাম্বারের উদাহরণ -১৫, ৩.১৪, ২৫, ২২/৭ ইত্যাদি।

জিনিও ই-শেখা ডাবলিউবিবিএসই-র নবম শ্রেণির গণিতের সমাধান, শিক্ষার্থীদের জন্য সেরার সেরা

হ্যাঁ, জিনিও ই-শেখা ওয়েবসাইটে ডাবলিউবিসিএইচএসই-র পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত যাবতীয় প্রশ্নের সঠিক এবং বিস্তারিত সমাধান দেওয়া রয়েছে। জিনিও ই-শেখা আপনার জন্য নিয়ে এসেছে নবম শ্রেণির গণিতের প্রথম অধ্যায়ের ডাবলিউবিবিএসই-র এক অসামান্য সমাধান। বিশেষজ্ঞ শিক্ষকমণ্ডলীর দ্বারা তৈরি এই সমাধান শিক্ষার্থীদের সহজে ও সঠিকভাবে বুঝতে ষোলোআনা সাহায্য করবে। পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত গণিতের প্রশ্নাবলীর যাবতীয় সমাধান বিস্তারিতভাবে ধাপে ধাপে ব্যাখ্যা সহকারে এখানে উল্লেখ করা হয়েছে।

আপনি কি ডাবলিউবিবিএসই-র নবম শ্রেণির গণিতের প্রথম অধ্যায়ের সিলেবাস অনুযায়ী সমাধান খুঁজছেন? জানবেন, আপনি সঠিক জায়গায় ক্লিক করেছেন। জিনিও ই-শেখার শিক্ষকরা অত্যন্ত নিখুঁতভাবে নবম শ্রেণির ডাবলিউবিবিএসই-র সমাধান প্রস্তুত করেছেন শিক্ষার্থীদের আকাশছোঁয়া সাফল্য দেওয়ার জন্য।  

জিনিও ই-শেখা শিক্ষার্থীকে স্ব-নির্ভরভাবে শিক্ষালাভের সুযোগ প্রদান করে। একজন শিক্ষার্থী তার সময়-সুযোগ অনুযায়ী, নিজস্ব গতিতে এখানে শিখতে পারে। এখানে রয়েছে এআই-ভিত্তিক শিক্ষার সুযোগ, যা পড়ুয়ার ধারণাগত শিক্ষার ভিত মজবুত করে। জিনিও ইশেখাতে পড়াশোনা আনন্দদায়ক হওয়ার কারণে পড়ুয়ারা দীর্ঘসময় পড়াশোনা করতে আগ্রহী হয়। শিক্ষার্থীর ব্যক্তিগত আগ্রহের দিকটিও ক্রমশ বৃদ্ধি পায়। জিনিও ই-শেখায় রয়েছে নানাবিধ সুযোগ, যেমন অনলাইন ক্লাসের পাশাপাশি অ্যাসাইনমেন্ট এবং মূল্যায়নের সুবিধা।  সত্যি বলতে, ক্লাসশিক্ষার পরিপূরক হিসাবে জিনিও ই-শেখা অতুলনীয়। সেইসঙ্গে একজন শিক্ষার্থীর যুগোপযোগী হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে, প্রযুক্তিগত ভাবে এগিয়ে থাকার ক্ষেত্রে অসামান্য ভূমিকা রাখে। সবচেয়ে বড় কথা, ঘরে বসেই এতকিছুর সুযোগ শুধুমাত্র জিনিও ইশেখাতেই সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.